মরগানের ব্যাটিং ঝড়ে ইংল্যান্ডের অবিশ্বাস্য জয়

ইয়ন মরগানের ব্যাটিং তাণ্ডবে ২২৩ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে দাপুটে জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড। তিন ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে পাঁচ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটের জয়ে ট্রফি নিশ্চিত করল ইংল্যান্ড। সিরিজের প্রথম খেলায় হেরে যাওয়া দলটি টানা দুই ম্যাচ জিতে শিরোপা নিজেদের করে নেয়।

রোববার প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬ উইকেটে ২২২ রানের পাহাড় গড়ে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ২২৩ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে রীতিমতো তাণ্ডব চালান ইংলিশ ব্যাটসম্যান জস বাটলার, জনি বেয়ারস্টো ও ইয়ন মরগান।

৫৭ ও ৬৪ রান করে বাটলার ও বেয়ারস্টো আউট হলেও দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান। দলকে জয় উপহার দিতে মাত্র ২২ বলে দৃষ্টিনন্দন ৭টি ছক্কায় অপরাজিত ৫৭ রানের ইনিংস খেলেন মরগান।

২২৩ রানের পাহাড় ডিঙাতে নেমে দলীয় ১৫ রানে ওপেনার জেসন রয়ের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় উইকেটে জনি বেয়ারস্টোর সঙ্গে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ৪৯ বলে ৯১ রানের জুটি গড়েন অন্য ওপেনার জস বাটলার।

এরপর ৩৯ রানের ব্যবধানে ইংল্যান্ড হারায় ৩ উইকেট। দলীয় ১০৬ রানে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন বাটলার। তার আগে ২৯ বলে ৯টি চার ও দুই ছক্কায় ৫৭ রান করেন তিনি। ৩৪ বলে ৭টি চার ও তিন ছক্কায় ৬৪ রান করে ফেরেন জনি বেয়ারস্টো। ১২ বলে ১১ রান করে আউট হন ডেভিড মালান।

জয়ের জন্য শেষ দিকে ৩৬ বলে প্রয়োজন ছিল ৭৬ রান। খেলার এমন অবস্থায় ১২.৬৬ গড়ে রান তুলতে গিয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব শুরু করেন ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগান। ১৫তম ওভারে ডোয়েন পিটোরিয়াসকে দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে ১৫ রান আদায় করে নেন মরগান। পরের ওভারে ডেল স্টেইনের বলে এক ছক্কা হাঁকিয়ে আদায় করেন ৯ রান।

শেষ ২৪ বলে প্রয়োজন ছিল ৫৩ রান। ১৭তম ওভারে লুঙ্গি এনডিগির বলে দুটি ছক্কা আর একটি চার হাঁকিয়ে ২০ রান আদায় করেন মরগান। পরের ওভারে আন্দিল ফেহালুকাওয়ের বলে দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে ১৬ রান আদায় করেন বেন স্টোকস।

জয়ের জন্য শেষ ১২ বলে প্রয়োজন ছিল মাত্র ১৭ রান। ১৯তম ওভারের প্রথম বলে বেন স্টোকসের উইকেট হারালেও লুঙ্গি এনডিগির চতুর্থ ও পঞ্চম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ১৬ রান আদায় করেন মরগান। জয়ের জন্য শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল মাত্র ১ রান। ফেহালুকাওয়ের প্রথম বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন অলরাউন্ডার মঈন আলী।

রোববার দক্ষিণ আফ্রিকার সেঞ্চুরিয়নের সুপার স্পোর্টস পার্কে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন আফ্রিকান অধিনায়ক ডি কক।

প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে টিম্বা বাভুমাকে সঙ্গে নিয়ে ৭.৪ ওভারে ১১.৩৫ গড়ে উদ্বোধনী জুটিতে ৮৪ রান করেন অধিনায়ক কুইন্টন ডি কক। এরপর মাত্র ২ রানের ব্যবধানে দুই ওপেনারের উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

২৪ বলে ৪টি দৃষ্টিনন্দন ছক্কা আর এক চারের সাহায্যে ৩৫ রান করা ডি কক আউট হন বেন স্টকের বলে। স্কয়ার লেগের ওপর দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন ডি কক। রোববারের আগে টি-টোয়েন্টির সবশেষ চার ম্যাচে ৫২, ৭৯*, ৩১ ও ৬৫ রানের ইনিংস খেলেছেন আফ্রিকান এ অধিনায়ক।

ডি কক আউট হওয়ার পর মাত্র ২ রানের ব্যবধানে ফেরেন দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাওয়া টিম্বা বাভুমা। আদিল রশিদের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ২৪ বলে ৩টি ছয় আর চারটি চারের সাহায্যে ৪৯ রান করে ফেনের বাভুমা।

চার নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩৩ বলে ৪টি ছক্কা ও চারটি চারের সাহায্যে দলীয় সর্বোচ্চ ৬৬ রান করে ফেরেন হেনরিক ক্লাসেন। দলীয় ১২তম ওভারে পাঁচ নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের শেষ পর্যন্ত খেলেন ডেভিড মিলার। ২০ বলে তিনচার ও দুটি ছক্কায় অপরাজিত ৩৫ রান করেন মিলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *